ব্রেকিং

x

বাজেট প্রতিক্রিয়া

প্রস্তাবিত বাজেট জীবন যাত্রার ব্যয় হ্রাস ও স্বয়ংক্রিয় স্থিতিশীলতায় ভূমিকা রাখবে-প্রফেসর ড.মো:সেলিম উদ্দিন

বৃহস্পতিবার, ০১ জুন ২০২৩ | 53 বার

প্রস্তাবিত বাজেট জীবন যাত্রার ব্যয় হ্রাস ও স্বয়ংক্রিয় স্থিতিশীলতায় ভূমিকা রাখবে-প্রফেসর ড.মো:সেলিম উদ্দিন
প্রফেসর ড.মো:সেলিম উদ্দিন

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক এবং বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইনান্স কর্পোরেশন (বিএইচবিএফসি) ও ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড এর নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান, ড. মো: সেলিম উদ্দিন ২০২৩-২০২৪ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট বিষয়ে তাঁর বিশ্লেষণ প্রদান করেছেন। বিশ্লেষণে তিনি বলেন, বাজেটটি এমন এক সময়ে ঘোষিত হল, যখন বিশ্বব্যপী মহামারী কোভিড-১৯ কারণে ক্ষতিগ্রস্থ অর্থনীতি পুনরুদ্ধার হতে না হতে রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধকে কেন্দ্র করে ভয়ানক অস্থির বিশ্ব বাজারের প্রতিকূল প্রভাবে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সূচকগুলো চ্যালেঞ্জের মুখে পতিত হয়েছে। এ প্রতিকূলতার মধ্যে মুদ্রাস্ফীতি, ডলার সংকট, রিজার্ভে অব্যাহত চাপ, টাকার বিনিময় হারে অস্থিতিশীলতা তথা বহি: খাত- আমদানী, রপ্তানী ও প্রবাসী আয় ইত্যাদি সূচকগুলো ক্রমশ: সংবেদনশীল হয়ে উঠছে। তিনি প্রস্তাবিত বাজেটকে জীবন যাত্রার ব্যয়ে স্বস্তি এবং অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা আনয়নকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে ২০৪১ সালের মধ্যে সুখী, সমৃদ্ধ ও স্মার্ট বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন বাস্তবায়নের প্রয়াস হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। তিনি বলেন, ঘোষিত বাজেটের আকৃতি ৭,৬১,৭৮৫ কোটি টাকা। প্রস্তাবিত এ বাজেটে মুদ্রাস্ফীতি ও জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে যথাক্রমে ৬.৫-৭.০০ শতাংশ ও ৭.৫ শতাংশ। এ বাজেট বাস্তবায়নের সম্ভাব্য মোট আয় প্রাক্কলন করা হয়েছে ৫,০৩,৯০০ কোটি টাকা যার মধ্যে এনবিআরের লক্ষ্য ৪ লক্ষ কোটি টাকা, এনবিআর বহির্ভুত ২০ হাজার কোটি টাকা, কর বহির্ভুত আয় ৫০ হাজার কোটি টাকা এবং অনুদান তিন হাজার নয়শত কোটি টাকা। প্রস্তাবিত আয়-ব্যয়ের ঘাটতি দুই লক্ষ ৫৭ হাজার ৮শ’ পচাঁশি কোটি টাকার মধ্যে আভ্যন্তরীন ও বৈদেশিক উৎস হতে যথাক্রমে ১৫৫,৩৯৫ কোটি টাকা ও ১০২,৪৯০ কোটি টাকা ঋণের মাধ্যমে অর্থায়ন করা হবে। মোট বাজেটের ৪৭৫,২৮১/-কোটি টাকা (৬২.৩৯%) পরিচালনা ব্যয়, ২৭৭,৫৮২/-কোটি টাকা (৩৬.৪৩%) উন্নয়ন খাতে এবং অবশিষ্ট ৮,৯২২/-কোটি টাকা (১.১৭%) খাদ্য, ঋণ ও অগ্রিমে খরচ হবে। ইতিহাসের সর্ববৃহৎ আকারের এই বাজেট দুটি সরকার বাস্তবায়ন করবে বিধায় বাজেটের প্রতিটি বিষয়, বরাদ্দকৃত খাত, বাস্তবায়ন কৌশল, সরকারের দর্শন, স্বপ্ন, বৈশ্বিক অর্থনৈতিক পরিস্থিতি সামলে নেয়া ইত্যাদি বিষয়গুলোতে আলাদা আলাদা গুরুত্বারোপ করা হয়েছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

ড. সেলিম বলেন, ২০২৩-২৪ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেট বিশ্লেষন করলে অনেকগুলো ভাল ও গুণগত বৈশিষ্ট্য দেখা যাবে। অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতার লক্ষ্যে মুদ্রাস্ফীতি রোধ, জিডিপির প্রবৃদ্ধি ধারা অব্যাহত রাখা, মুদ্রা ও রাজস্বনীতির সমন্বয় সাধন, ব্যালেন্স অব পেমেন্ট ঘাটতি হ্রাস, দেশীয় শিল্পকে সুরক্ষা, রপ্তানী বহুমুখীকরণ, কর ব্যবস্থার যৌক্তিকীকরণ সহ নানাবিধ প্রস্তাবনা রয়েছে এবারের বাজেটে।

ড. সেলিমের মতে, প্রস্তাবিত বাজেটে প্রত্যক্ষ করের ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন আনা হয়েছে। যেমন- আয়কর মুক্ত সীমা ৩ লক্ষ টাকা থেকে সাড়ে ৩ লক্ষ টাকা যা নারীসহ সিনিয়র সিটিজেনদের ক্ষেত্রে সাড়ে ৩ লক্ষ হতে ৪ লক্ষ টাকা এবং অন্যান্য ক্ষেত্রে আয়কর সীমা ২৫ হাজার টাকায় বৃদ্ধি করা হয়েছে। নূন্যতম কর অপরিবর্তিত থাকলেও করযোগ্য সীমার নীচে যারা আয় বিবরনী দাখিলে যোগ্য তাদের প্রত্যেকের উপর নূন্যতম দুই হাজার টাকা কর ধার্য্য করা হয়েছে। সম্পদের সারচার্জের ক্ষেত্রে মোট সম্পদের পরিমাণ ৩ কোটি থেকে ৪ কোটিতে বৃদ্ধি হয়েছে এবং ৪ কোটি টাকার অধিক সম্পদের মালিককে ১০% সারচার্জ এবং ৫০ কোটি টাকার উপরে ৩৫% সারচার্জ ধার্য্য হবে। এসব কর হার পরিবর্তনে নিম্ন আয়ের জনগণকে স্বস্তি, নূন্যতম ২ হাজার টাকা কর প্রদান করে কর সংস্কৃতি, সরকারী জনকল্যাণে অংশগ্রহণসহ কর জালের বিস্তারে পরোক্ষ ভূমিকা থাকবে। সম্পদ কর পরিবর্তনে মধ্যবিত্ত শ্রেণীতে আর্থিক স্বস্তি আসবে এবং ধনীক শ্রেণীতে অধিক সারচার্জ আয় বৈষম্য কমাতে সহায়ক হবে।

ড. সেলিম এ প্রসঙ্গে আরো বলেন, দেশে ৮৮ লক্ষ ই-টিন ধারী থাকলেও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের তথ্যমতে এবছরের এপ্রিল পর্যন্ত মাত্র ৩১ লক্ষ সত্তর হাজার ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান রিটার্ন দাখিল করেছেন। এই সংখ্যা বৃদ্ধির লক্ষ্যে নতুন কতিপয় সরকারি সেবা গ্রহণে রিটার্ন দাখিলের প্রমাণক জমাদান বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এছাড়া টিআরপি (ঞধী জবঃঁৎহ চৎবঢ়ধৎবং) এর জন্য নীতিমালা তৈরি হবে। এসব পদক্ষেপ করের আওতা বৃদ্ধি এবং কর ব্যবস্থাপনায় স্বচ্ছতা ও কর সেবায় পেশাদারিত্ব প্রতিষ্ঠা করবে।

জনগণের জীবনযাত্রার ব্যয় হ্রাস, দেশীয় শিল্প সুরক্ষা, আমদানী বিকল্প শিল্প সুরক্ষা, রপ্তানী উৎসাহ, পণ্যের উৎপাদন ও যোগান স্বাভাবিক ও বৃদ্ধি, নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্তকে পণ্যমূল্যে স্বস্তিসহ আইসিটি ও অন্যান্য শিল্পখাতে বিনিয়োগ বৃদ্ধির লক্ষ্যে বাজেটে বিভিন্ন ধরনের পণ্যে ট্যারিফ যৌক্তিকীকরণ, কর ও শুল্ক ছাড় বা আরোপ প্রস্তাব করা হয়েছে। শুল্ক ছাড়ে দাম কমার তালিকায় মাংস,দেশীয় এলইডি বাল্ব, সুইচ সকেট, মিষ্টি, অভিজাত পোষাক, ই-কমার্সের ডেলিভারি চার্জ ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য। এর ফলে কৃষি সহজীকরণ এবং দেশীয় ইলেকট্রনিক্স শিল্প লাভবান হবে। অভিজাত পোষাকের শুল্ক হ্রাস করা হয়েছে যা টেক্সটাইল শিল্পে ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে। কিছু নিত্য ব্যবহার্য সামগ্রী যেমন- কলম, টয়লেট টিস্যু,মোবাইল ফোন ইত্যাদিতে ভ্যাট আরোপে জীবনযাত্রার ব্যয় বাড়বে এবং বাজেটের মূল লক্ষ্য মুদ্রাস্ফীতি রোধের বিপক্ষে যাবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

প্রস্তাবিত বাজেটে সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী, ভূর্তুকি, কৃষি, স্বাস্থ্য অর্থাৎ যে খাত গুলো নিম্ন আয়ের জনগন, ক্ষুদ্র ও মাঝারী শিল্পকে সুরক্ষা দিবে সেসব খাতে উল্লেখযোগ্য বরাদ্দ দেয়া হয়েছে মর্মে ড. সেলিম উল্লেখ করেন। বাজেটে খাদ্য-নিরাপত্তা ও খাদ্য কর্মসূচীগুলোর আওতা বাড়বে বলেও তিনি উল্লেখ করেন। মুদ্রাস্ফীতি থেকে স্বস্তি দিতে খোলা বাজারে স্বল্প মূল্যে পণ্য বিক্রির ব্যপ্তি বাড়ানো হয়েছে বলেও ড. সেলিম উল্লেখ করেন।

প্রস্তাবিত বাজেটে মুদ্রাস্ফীতি রোধে এবং বাজস্ব আহরণের অনেক কৌশল উল্লেখ করা হয়েছে কিন্তু অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা আনয়নে, আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্যের দাম কমা সত্বেও দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি, ঘাটতি অর্থায়নে অভ্যন্তরীণ উৎসে চাপ অর্থাৎ ব্যাংক ঋণের উপর নির্ভরশীলতা, কর প্রশাসনের উল্লেখযোগ্য গতিশীল কৌশল, রিজার্ভ বাড়ানো, বিনিময় হারের স্থিতিশীলতা, মূলধনী যন্ত্রপাতি ও কাচামাল আমদানী, শিল্পে জ্বালানী সরবরাহ ঠিক রেখে উৎপাদন ব্যবস্থা অব্যাহত রাখাসহ বিভিন্ন সম-সাময়িক পরিস্থিতির উপর বাজেটে বলিষ্ট ভূমিকার কথা উল্লেখ থাকা প্রয়োজন মর্মে ড. সেলিম তাঁর অভিমত ব্যক্ত করেছেন।

শেষত: তিনি এ বাজেটের সাফল্য অবশ্যই এর বাস্তবায়নের উপর নির্ভর করবে এবং রাজস্ব আহরণকে অগ্রাধিকারমূলক মেগা প্রকল্প হিসেবে গ্রহণ করতে হবে বলে মতামত প্রদান করেন।

Development by: webnewsdesign.com