ভয়াল করোনার ধ্বাক্কায় ওমান প্রবাসী দেশে এসে হাস-মুরগির খামার করে ঘুরে দাড়াতে চা

শনিবার, ০৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ | 13 বার

ভয়াল করোনার ধ্বাক্কায় ওমান প্রবাসী দেশে এসে হাস-মুরগির খামার করে ঘুরে দাড়াতে চা

পিরোজপুর জেলার নাজিরপুর উপজেলইউনিয়নস্থ বড় বুইচাকাঠী গ্রামের মৃত: মাষ্টার জয়নদ্দিন মাঝির পুত্র ফরিদ মাঝি (৪০) ওমানে ০৬ (ছয়) বছর থাকার পর সারা বিশে^র করোনার ভয়াল থাবায় বাধ্য হয়ে দেশে ফিরে এসে সংসার পরিচালনায় দিশেহারা হয়ে পরেন। অবশেষে আত্মীয়-স্বজনের পরামর্শে জমানো অর্থ দিয়ে নাজিরপুর-পাটগাতি আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশের্^ ৫৬ শতক জমি কবলা করে তার উপর খামার স্থাপন করেন। বর্তমানে ফরিদ মাঝি ও তার স্ত্রী জোসনা পারভীন খামারে ১৫০০ টি মুরগির বাচ্চা, ৩০০টি হাঁস ও ২৫টি ছাগল এবং খামারের আইলে বিভিন্ন ধরনের সবজি ও ফলের চাষের পাশাপাশি পুকুরে মাছ চাষ করে পরিবারের ০২ সন্তান নিয়ে খেয়ে-পড়ে বেঁচে আছে।

উক্ত খামারী ফরিদ মাঝির সাথে কথা বললে তিনি এ প্রতিনিধিকে জানান, যে সকল প্রবাসীরা পুনরায় বিদেশে কর্মস্থলে যেতে পারেনি তাদেরকে সরকার দেশে যে কোন কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দিলে বা যে কোন স্বল্প সুদে ব্যাংক ঋণ দিয়ে সহায়তা করলে আমারা আমাদের দেশকে অর্থনৈতিক ভাবে আরো এগিয়ে নিতে পারব বলে বিশ^াস করি। সরকারের সহায়তা পেলে আমি এ খামারকে সমৃদ্ধ করে গরু মোটা-তাজা করণ ও ডেইরী ফার্ম চালু করার পরিকল্পনা করছি।

dhakarkagoj.com

যদি গরুর খামার চালু করতে পারি তাহলে দু-চারটি বেকার যুবকদের কে এ ফার্ম থেকে কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দেয়া যাবে। যদি আমার দেশের বেকার যুবক ছেলে-মেয়েরা এভাবে অলসতা দুর করে আত্ম-কর্মসংস্থানে এগিয়ে আসে তাহলেই অভাবে স্বভাব নষ্ট কথাটি মিথ্যা প্রমানিত হবে এবং চাকুরীর জন্য দ্বারে দ্বারে ধরনা দিতে হবে না।

Development by: webnewsdesign.com