ব্রেকিং

x

শয্যাশায়ী মাকে নিয়ে অসহায় সিফাতের জীবনযুদ্ধ; অদম্য সিফাতের পাশে দাড়ালেন র‌্যাব মহাপরিচালক

মঙ্গলবার, ২৫ জুলাই ২০২৩ | 46 বার

শয্যাশায়ী মাকে নিয়ে অসহায় সিফাতের জীবনযুদ্ধ; অদম্য সিফাতের পাশে দাড়ালেন র‌্যাব মহাপরিচালক
শয্যাশায়ী মাকে নিয়ে অসহায় সিফাতের জীবনযুদ্ধ; অদম্য সিফাতের পাশে দাড়ালেন র‌্যাব মহাপরিচালক

র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে জঙ্গি, মাদক, অবৈধ অস্ত্র, গোলাবারুদ উদ্ধার, চাঞ্চল্যকর হত্যা, ধর্ষণ, চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী ও অন্যান্য অপরাধীদের গ্রেফতার করে সাধারণ জনগণের মনে আ¯’া অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। এই বাহিনী প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই অপরাধ দমনের পাশাপাশি বিভিন্ন সময়ে শীতার্থদের মাঝে শীত বস্ত্র বিতরন, দৃষ্টি প্রতিবন্ধিদের মাঝে সাদা ছড়ি বিতরন, বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও দুর্বিপাকে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো, অগ্নিদুর্ঘটনা, ভবনধ্বসে পতিত মানুষদের উদ্ধারসহ বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাÐে অংশগ্রহণ করে সেবামূলক কাজের মাধ্যমে সর্বস্তরের মানুষের আ¯’া অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে।

সম্প্রতি একটি মিডিয়ায় প্রচারিত সংবাদের সূত্রে ১০ বছর বয়সী মোঃ মুরাদ হোসেন সিফাত নামের এক শিশুর জীবন সংগ্রামের খবর র‌্যাব মহাপরিচালকের নজরে আসে। যেখানে দেখা যায়, ¯’ানীয় একটি স্কুলের চতুর্থ শ্রেণীতে পড়ুয়া শিশু সিফাতের লেখাপড়ার পাশাপাশি পাহাড়সম দায়িত্ব নিয়ে তার অসু¯’ মা ও পরিবারের খরচ যোগানোর প্রানান্ত চেষ্টার কথা। পরবর্তীতে র‌্যাব মহাপরিচালকের নির্দেশে সরেজমিনে গিয়ে ¯’ানীয় র‌্যাব জানতে পারে জীবন যুদ্ধে অদম্য এই শিশুর প্রকৃত জীবন সংগ্রামের মর্মস্পর্শী কাহিনী। যার দিন শুরু হয় ভোর ০৫টা হতে ¯’ানীয় বাজারের একটি চায়ের দোকানে প্রতিদিন ২ ঘন্টা করে নাস্তা পরিবেশন, চা বানানোসহ বিভিন্ন কাজের বিনিময়ে ৫০ টাকা পারিশ্রমিক লাভের মাধ্যমে। যা দিয়ে সে সংসারের বাজার, মায়ের ঔষধ কিনে বাড়ি ফিরত। পরবর্তীতে অসু¯’ মায়ের দেখাশুনা শেষে পড়াশোনার জন্য আবার স্কুলে যেতো।

সিফাতের মা মোছাঃ শিল্পী খাতুন সিরাজগঞ্জের কামাওরখন্দ এলাকার বাসিন্দা। সিফাতের বয়স যখন ০৪ মাস তখন তাঁর স্বামী মাসুদ রানা মারা যান। স্বামী মারা যাওয়ার পর বিভিন্ন বাসা বাড়িতে কাজ করে তিনি সংসারের খরচ ও ছেলের পড়ালেখার খরচ চালাতেন শিল্পী খাতুন। কিš‘ কিডনি ও থাইরয়েডজনিত বিভিন্ন জটিলতার কারণে তিনি গত সাড়ে ৩ বছর ধরে কাজকর্ম ও চলাচলে প্রায় অক্ষম হয়ে বর্তমানে শয্যাশায়ী এবং অর্থের অভাবে শিল্পী খাতুনের চিকিৎসা করা সম্ভব হ”িছলো না। ফলে সাংসারিক ব্যয় বহন করতে ১০ বছরের ছোট্ট শিশু সিফাত লেখাপড়ার পাশাপাশি চায়ের দোকানে কাজ শুরু করে।

সিফাত হোসেনের অদম্য এ জীবন যুদ্ধের খবরটির তথ্য পেয়েই মানবিক দিক বিবেচনায় তার পাশে দাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয় র‌্যাব ফোর্সেস। এ প্রেক্ষিতে র‌্যাব মহাপরিচালক সিফাত ও তার অসু¯’ মাকে র‌্যাব সদর দপ্তরে নিয়ে এসে তাদের সাথে কথা বলেন ও সার্বিক বিষয়ে খোঁজ খবর নেন। তিনি তাদের নগদ দুই লক্ষ টাকা আর্থিক সহায়তা প্রদান করেন ও সিফাতের এসএসসি পর্যন্ত লেখাপড়ার দায়িত্ব নেন এবং প্রতিমাসে তার পরিবারের অন্যান্য ব্যয় নির্বাহের জন্য একটি নির্দিষ্ট পরিমান অর্থ প্রদানের আশ^াস দেন। এছাড়াও তিনি সিফাতের মা শিল্পী খাতুনের উন্নত চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়ে র‌্যাবের সহায়তায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ার্ড নং-৮০২, ইউনিট নং-২ এর বেড নং -৫৯ক’তে ভর্তি করান এবং নিকট¯’ র‌্যাব ব্যাটালিয়নকে তার সার্বিক দেখাশোনার জন্য নির্দেশ প্রদান করেন। এ সময় র‌্যাব ফোর্সেস এর মহাপরিচালক অতীতের ন্যায় ভবিষ্যতেও এ ধরণের মানবিক কাজে র‌্যাব ফোর্সেসের সহায়তা অব্যাহত থাকবে বলে তার প্রতিশ্রæতি পুনর্ব্যক্ত করেন। এ সময় তিনি আশা প্রকাশ করেন সমাজের শিল্পপতি, সমাজপতি, ও জনপ্রতিনিধিসহ সামর্থ্যবান মানুষ যদি অসহায় মানুষদের সাহায্যে এভাবে এগিয়ে আসেন তবে খুব দ্রæতই বৈষম্যহীন সমাজ গড়ে উঠবে। পাশাপাশি এ ধরণের মানবিক সংবাদ প্রচারে ফলে সমাজের সামর্থবানরা তা দেখে অনুপ্রাণিত হয়ে অসহায় মানুষদের পাশে দাড়ানোর সুযোগ সৃষ্টি হওয়ায় তিনি সংবাদ মাধ্যমকেও ধন্যবাদ জানান।

Development by: webnewsdesign.com