শোরুম বন্ধ করে জুম্মার নামাজ পরতে যাওয়ায় শোরুম থেকে বের করে চাকুরিচুত‌্য করাহল যুবককে

শুক্রবার, ৩০ এপ্রিল ২০২১ | 120 বার

শোরুম বন্ধ করে জুম্মার নামাজ পরতে যাওয়ায় শোরুম থেকে বের করে চাকুরিচুত‌্য করাহল যুবককে
শোরুম বন্ধ করে জুম্মার নামাজ পরতে যাওয়ায় শোরুম থেকে বের করে চাকুরিচুত‌্য হল মারুফ খান

নামাজ প্রতিটি মুসলমানদের জন‌্য ফরজ করা হয়েছে তার বুঝের পর থেকেই । বলা হয় কাজকে বল আমার নামাজের সময় হয়েছে,নামাজকে নয় । কোন কাজের অজুহাতেই যেন নামাজ ছুটে না যায় । রমজান মাস কাজের চাপও কম, শুক্রবার জুম্মার নামাজের সময় এবং করোনার এ সময় বেচা-বিক্রির চাপও একটু কম ।

আজ সিলেটের হবিগঞ্জ সদরের আরএফএল বেস্ট বাই শোরুমে ঘটল অনাকাঙ্খিত এক ঘটনা । শোরুম বন্ধ করে জুম্মার নামাজ পরতে যাওয়ায় শোরুম থেকে বের করে চাকুরিচুত‌্য করা হল হবিগঞ্জ সদরের আরএফএল বেস্ট বাই শোরুমের সেলস এক্সিকিউটিভ মারুফ খান নামের একজনকে ।

dhakarkagoj.com

ঘটে যাওয়া এমন ঘটনার পর তার ফেইসবুক পেইজে পোষ্ট দেন এবং “বিক্রয় পেশাজীবি এবং পরিবেশক” নামের গ্রুপ পেইজে পোষ্টটি শেয়ার করেন । যা আমরা আমাদের পাঠকদের জন‌্য হুুুুুবহু তুলে ধরলাম ।

 

 

বিক্রয় পেশাজীবি এবং পরিবেশক নামের এই পেজে নিজের ফেসবুক পেইজ থেকে শেয়ার করেন ।

 

#নামাজ পড়ার অপরাধে চাকরি ও কাজ থেকে বিতাড়িত!!

আমি মারুফ খান, আরএফএল বেস্ট বাই, হবিগঞ্জ সদর শোরুমের একজন সেলস্ এক্সিকিউটিভ।

আমি একজন মুসলমান! নামাজ আদায় করা আমাদের ইসলাম ধর্মে প্রত্যেকের জন্য ফরয। আর সেই ফরয নামাজ (পবিত্র জুম্মার নামাজ) পড়তে যাবার অপরাধে আজ আমাকে শোরুম থেকে বের করে দেয়া হয়েছে।
আজান পরার পর আরএফএল বেস্ট বাই শোরুম, আমাদের হবিগঞ্জ সদরের শোরুম ম্যানেজারকে ফোন দেই কিন্তু উনি ফোন না ধরে কেটে দেন। উনি ফোন ধরবেন কিভাবে উনি তো প্রতিদিনের ন্যায় কাজ ছেড়ে বাহিরে গিয়ে আরাম করছিলেন। উনি ফোন না ধরাতে আমি কাপড় বদলিয়ে আমরা ৩জন শোরুম বন্ধ করে মসজিদে চলে যাই। ঠিক ঐ মূহুর্তে ম্যানেজার আমাকে ফোন দিয়ে বলেন যে, আমি কার অনুমতি নিয়ে শোরুম বন্ধ করছি, সে আমাকে বলে যে আমি চাকরি করতে চাই না নামাজ পড়তে চাই?

আমি তখন বললাম স্যার চাকরি করি বলে কি আমাকে নামাজ ছেড়ে দিতে হবে?

উনি আমাকে ঐ কথা শুনে হুমকি দেন যে আমাকে ঘাড় ধরে শোরুম থেকে বের করে দিবেন এবং আমাকে চাকরি থেকেও বের করে দিবেন।

ঐ মূহুর্তে আমি নামাজ না পড়ে মসজিদ থেকে চলে আসি এবং আইসা শোরুম খুলি। তখন ম্যানেজার আইসা আমাকে শোরুম থেকে বের হয়ে যেতে বলে।

আমি কিছু বুঝে উঠতে না পেরে কি করবো না করবো কোনো কিছু না ভেবে চলে আসি।

শুধুমাত্র মসজিদে গিয়ে পবিত্র জুম্মার নামাজ পড়ার অপরাধে আমাকে কাজ ও শোরুম থেকে বের করে দেয়া হলো।

চাকরি করি তাই বলে কি আমি আমার ধর্ম ও নামাজ আদায় করতে পারবোনা। নামাজ পড়তে মসজিদে গেছি এটাই কি আমার অপরাধ?

নামাজ পড়া যদি অপরাধ হয়ে থাকে আর সেই অপরাধে যদি চাকুরিচ্যুত হতে হয় তাহলে আমি আমার আল্লাহ ও রাসুলের বিধান পালন করতে গিয়ে সেই চাকরি করবোনা।

দোয়া করবেন, আল্লাহ ভরসা ।

Development by: webnewsdesign.com