ব্রেকিং

x

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সরব বাংলাদেশ বেতার

বৃহস্পতিবার, ১৭ আগস্ট ২০২৩ | 12 বার

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সরব বাংলাদেশ বেতার

দেশের প্রাচীনতম রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম বাংলাদেশ বেতারের সংবাদ ও অনুষ্ঠানসমূহ তরঙ্গ সম্প্রচারের পাশাপাশি এখন নিয়মিত অনলাইন প্ল্যাটফর্ম যেমন ফেইসবুক পেইজ, ইউটিউব ও মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে প্রচারের আনুষ্ঠানিক উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণের পথে বেতার সম্প্রচারকে আরো আধুনিক এবং দেশ ও বহির্বিশ্বে শ্রোতাদের কাছে আরও সহজলভ্য করতে সম্প্রতি বাংলাদেশ বেতারের ১৪টি আঞ্চলিক কেন্দ্র ও ৭টি বিশেষায়িত ইউনিটের অনুষ্ঠান ও বার্তা শাখার মোট ৩৬টি ফেইসবুক পেইজ ও ৩৪টি ইউটিউব চ্যানেল একযোগে উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ বেতারের মহাপরিচালক নাসরুল্লাহ মো: ইরফান। এসময় বেতারের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

 

 

প্রসঙ্গত, গত কয়েক বছর ধরেই বিভিন্ন আঞ্চলিক বেতার কেন্দ্র থেকে নিজস্ব উদ্যোগে জনপ্রিয় অনুষ্ঠান অনলাইন প্ল্যাটফর্মে পরীক্ষামূলকভাবে প্রচার করা হতো। দর্শক-শ্রোতার চাহিদা ও আগ্রহের কারণে অনলাইন প্ল্যাটফর্ম এবং ফেইসবুক পেইজ ও ইউটিউব চ্যানেলগুলোকে বর্তমানে আনুষ্ঠানিক (অফিসিয়াল) রূপ দেওয়া হয়েছে।

বক্ত্যবের শুরুতেই বাংলাদেশ বেতারের মহাপরিচালক নাসরুল্লাহ মো: ইরফান জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের শাহাদাৎবরণকারী ১৭ জন সদস্যের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের দ্বিতীয় ফ্রন্ট হিসেবে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের ঐতিহাসিক ভূমিকার কথা সশ্রদ্ধ চিত্তে স্মরণ করেন। এসময়ে তিনি বলেন যে, অত্যন্ত জনপ্রিয় এই মাধ্যমটি শ্রোতার এবং যুগের চাহিদামতো নানা ধরণের অনুষ্ঠান নিয়মিত প্রচার করে যাচ্ছে। বর্তমানে স্মার্ট ফোনের মাধ্যমে বেতারের অনুষ্ঠান শোনার জন্য মোবাইল অ্যাপস রয়েছে, হাতে রয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ার মতো সহজ প্রচার মাধ্যম। তরঙ্গ সম্প্রচারের পাশাপাশি অনলাইন প্রচারেও সর্বোচ্চ পেশাগত মান বজায় রাখা হবে। তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহ্মুদ বাংলাদেশ বেতারের আধুনিকায়ন ও যুগোপোযুগী বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ প্রদান করেছেন। তাঁরই দিক-নির্দেশনায় বাংলাদেশ বেতারে নিউমিডিয়া কার্যক্রমটি শুরু করা সম্ভব হয়েছে।

“জনমানুষের কাছে নানা তথ্য পৌঁছে দেয়ার মাধ্যমে তাদের জীবনমান উন্নয়নে বাংলাদেশ বেতার মূল্যবান ও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে”, বিশ্ব বেতার দিবস ২০২৩ উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার করা এই উদ্ধৃতির কথা স্মরণ করে বেতারের মহাপরিচালক আরো বলেন যে, বাংলাদেশ বেতারে সংরক্ষিত বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক গুরুত্বপূর্ণ ভাষণ, বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সাক্ষাৎকার ও জনপ্রিয় অনুষ্ঠানসমূহ নতুন প্রজন্মের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য পর্যায়ক্রমে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপলোড করা হবে। এর ফলে তরুণ প্রজন্ম বাংলাদেশের শেকড় ও ইতিহাস-ঐতিহ্যের ব্যাপারে জানতে পারবে। তারা এসব আলোকিত বিষয়বস্তু থেকে দেশের ইতিহাস জানতে পারেবে এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত হবে।

প্রতিটি কেন্দ্র ও ইউনিটের ফেইসবুক পেইজ ও ইউটিউব চ্যানেলে সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড বিষয়ক অনুষ্ঠান ও সরাসরি সম্প্রচারকৃত বিভিন্ন জাতীয় অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী প্রদত্ত ভাষণসমূহ একযোগে লাইভ প্রচারিত হওয়ায় প্রধানমন্ত্রীর দিক-নির্দেশনা দেশবাসীর কাছে মুহূর্তেই পৌঁছে যাচ্ছে যা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে অত্যন্ত কার্যকর ও সহায়ক ভূমিকা পালন করবে বলেও বাংলাদেশ বেতারের মহাপরিচালক আশাবাদ ব্যক্ত করেন। এছাড়াও, এর মাধ্যমে শ্রোতারা সরকারের বিভিন্ন জনবান্ধব কার্যক্রমে সরাসরি সম্পৃক্ত হতে পারবে।

উল্লেখ্য যে, বাংলাদেশ বেতারের লিয়াজোঁ ও শ্রোতা গবেষণা শাখার জুন’২০২৩-এর রিপোর্ট অনুযায়ী, বাংলাদেশ বেতারের অনুষ্ঠান ও বার্তা শাখার সকল আঞ্চলিক কেন্দ্র ও ইউনিটের ৩৬টি ফেইসবুক পেইজে বর্তমানে মোট ৫,৭৭,২৩৪ জন ফলোয়ার এবং ৩৪টি ইউটিউবে ৬৪,১৯০ জন সাবস্ক্রাইবারস রয়েছে। এছাড়াও, বাংলাদেশ বেতারের ওয়েবসাইট ও মোবাইল অ্যাপসে যুক্ত আছেন ৩৪,২২,৩২৯ জন শ্রোতা।

Development by: webnewsdesign.com